বৃহঃস্পতিবার ১২ই ডিসেম্বর ২০১৯ |
শ্রমিক সচেতনতা

কাজ করতে গিয়ে আহত হলে কীভাবে ক্ষতিপূরণ পাবেন

 বুধবার ৩১শে অক্টোবর ২০১৮ সকাল ০৯:১৬:৫৮
কাজ

কাতারে কর্মরত কোনো শ্রমিক যদি কর্মক্ষেত্রে আহত হয়ে চিরতরে অক্ষম হয়ে পড়েন, তবে সেক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানের মালিক ওই কর্মীকে আর্র্থিক ক্ষতিপূরণ দিতে বাধ্য থাকবেন। যেদিন থেকে শ্রমিকের অক্ষম হওয়ার বিষয়টি প্রমাণিত হবে, সেদিন থেকে পরবর্তী ১৫ দিনের মধ্যে এই ক্ষতিপূরণ আদায় করতে হবে। অথবা, যদি শ্রমিকের দুর্ঘটনা নিয়ে কোনো তদন্ত কমিটি গঠিত হয়ে থাকে, তবে তদন্ত কমিটি যেদিন তদন্তের ফলাফল ঘোষণা করবে এবং এই ঘোষণায় শ্রমিকের অক্ষম হওয়ার বিষয়টি প্রমাণিত হবে, সেদিন থেকে পরবর্তী ১৫ দিনের মথ্যে এই ক্ষতিপূরণ শ্রমিককে দিতে হবে।

যদি কোনো শ্রমিক কর্মক্ষেত্রে দুর্ঘটনাবশত নিহত হন, তবে সেক্ষেত্রে শ্রমিকের মৃত্যুর তারিখ ধেকে পরবর্তী ১৫ দিনের মধ্যে ক্ষতিপূরণ জমা দিতে হবে আদালতের কোষাগারে। একইভাবে যদি এই দুর্ঘটনা তদন্তে কোনো কমিটি গঠিত হয়ে থাকে, তবে সেক্ষেত্রে কমিটি যেদিন ফলাফল ঘোষণা করবে এবং ঘোষণায় নিহত শ্রমিকের পক্ষে ক্ষতিপূরণ প্রাপ্য হওয়া প্রমাণিত হবে, সেদিন থেকে পরবর্তী ১৫ দিনের মধ্যে ক্ষতিপূরণের অর্থ আদালতে জমা দিতে হবে।

এক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে, যদি কোনো শ্রমিক কর্মক্ষেত্রে আহত হওয়ার পর পুরো এক বছর পেরিয়ে যায়, তবে সেক্ষেত্রে আহত শ্রমিক আর ক্ষতিপূরণ দাবি করতে পারবেন না। ঠিক একইভাবে কর্মক্ষেত্রে কোনো শ্রমিক নিহত হওয়ার পরবর্তী এক বছরে যদি নিহত শ্রমিকের কোনো উত্তরাধিকারী ক্ষতিপূরণ গ্রহণ না করে বা দাবি না করে, সেক্ষেত্রে এক বছর পর তা বাতিল হয়ে যাবে।

মনে রাখা প্রয়োজন, কর্মক্ষেত্রে আহত শ্রমিক যদি এমন কোনো কান্ড ঘটান, যাতে প্রমাণিত হয় যে তিনি ইচ্ছাকৃতভাবে নিজে আহত হেেয়ছেন, তবে সেক্ষেত্রে এই আহত শ্রমিক কোনো রকমের ক্ষতিপূরণ পাবেন না। একইভাবে যদি কোনো নিহত শ্রমিক ইচ্ছাকৃতভাবে দুর্ঘটনায় পতিত হন এবং মারা যান, তবে তারা উত্তরাধিকাররা এক্ষেত্রে কোনো ক্ষতিপূরণের দাবি করতে পারবেন না।

যদি প্রমাণিত হয় যে, আহত শ্রমিক কাজ করার সময় নেশাগ্রস্ত ছিলেন বা মদ পান করে কাজে ছিলেন, তবে এই আহত হওয়ার বিনিময়ে শ্রমিক কোনো ধরণের ক্ষতিপূরণ পাবেন না।

একইভাবে, যদি আহত শ্রমিক তদন্ত চলাকালে স্বাস্ত্য পরীক্ষায় হাজির হতে অস্বীকার করেন, বা আহত হওয়ার পর চিকিৎসক যে ওষুধ ও চিকিৎসা দিয়েছেন, সেগুলো মেনে না চলেন, এবং এ কারণে আহত শ্রমিক যদি কাজে অক্ষম হয়ে পড়েন, তবে তিনি কোনো ক্ষতিপূরণ পাবেন না।

কর্মক্ষেত্রে নিরাপত্তার জন্য যেসব নির্দেশনা থাকে, সেগুলো যদি কোনো শ্রমিক মেনে না চলেন এবং এ কারণে তিনি আহত বা নিহত হয়ে থাকেন, তবে তিনি প্রাপ্য ক্ষতিপূরণ থেকে বঞ্চিত হবেন।

কর্মক্ষেত্রে কাজের সময় তাই নিরাপত্তা সম্পর্কিত সব ধরণের নির্দেশনা মেনে চলা প্রতিটি শ্রমিকের উপর অবশ্য কর্তব্য। এটি যতটা আইনি বিষয়, এর চেয়েও বেশি নিজের জীবনের নিরাপত্তা সম্পর্কিত। তাই এসব বিষয়ে কখনো অবহেলা কাম্য নয়।

সংশ্লিষ্ট খবর