সোমবার ২৫শে মে ২০২০ |

কাতার পোস্টের অতীত ও বর্তমান

 বৃহঃস্পতিবার ২৭শে জুন ২০১৯ সকাল ১১:৪৫:৩৯
কাতার

সাম্প্রতিক সময়ে কাতারে নতুন করে জেগে উঠেছে পোস্ট অফিসের সেবা। আধুনিক প্রযুক্তি কাজে লাগিয়ে পোস্ট অফিসকে কার্যকর করে তোলার পদক্ষেপের অংশ হিসেবে বদলে ফেলা হয়েছে পোস্ট অফিসের লোগো, রং, সেবার ধরণসহ অনেক কিছু। সব মিলিয়ে কাতারের পোস্ট অফিস সেবা এখন আগের চেয়ে অনেক ব্যস্ত, গতিশীল এবং কর্মমুখর।

কাতার পোস্ট কর্তৃপক্ষের আনুষ্ঠানিক নাম ‘কিউ পোস্ট’। সর্বপ্রথম কাতারে পোস্ট অফিসের কার্যক্রম শুরু হয় ১৯৫০ সালে। সেকালে মাত্র ছয়জন কর্মচারী নিয়ে যাত্রা শুরু করে এই প্রতিষ্ঠান। এরপর ১৯৬৩ সালে কাতারজুড়ে পোস্ট অফিসের শাখা ও কার্যক্রম ছড়িয়ে দিয়ে এই প্রতিষ্ঠানকে গুরুত্বপূর্ণ ও কার্যকর করে গড়ে তোলার উদ্যোগ নেয় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। তখন থেকে আজ অবধি মানুষের চাহিদা ও প্রয়োজনীয়তার কথা বিবেচনায় রেখে নিত্যনতুন সেবা যোগ করে এর কার্যক্রমের পরিধি বিস্তৃত করে যাচ্ছে কাতার পোস্ট কর্তৃপক্ষ।

কাতারের করনিশ এলাকার কাছাকাছি দাফনায় অবস্থিত কাতার পোস্টের নয়নাভিরাম প্রধান কার্যালয়। বর্তমানে কাতারের বিভিন্ন এলাকায় মোট ২৭টি পোস্ট অফিসের শাখা রয়েছে। এছাড়া বিমানবন্দরে একটি পোস্ট অফিস ২৪ ঘন্টা প্রয়োজনীয় সেবা দিয়ে থাকে।

কাতারে পঞ্চাশের দশকে পোস্ট অফিসের কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর তখন ডাকটিকেট ছাপা হতো ইংরেজিতে। সেখানে মুদ্রা হিসেবে লেখা থাকতো রুপির নাম। 


জানা যায়, ১৯৫৬ সালে কাতারের এক প্রান্ত এলাকা দুখানে প্রথম পোস্ট অফিস চালু করা হয়। এরপর মিসাইয়িদ এলাকায় ১৯৬০ সালে শুরু হয় পোস্ট অফিসের কার্যক্রম। 

এই সময়ে ১৯৬১ সালে প্রথম কাতারি ডাকটিকেট ছাপা হয় এবং এটি প্রকাশ করে কাতার পোস্ট কর্তৃপক্ষ স্বয়ং।

১৯৬৩ সালের দিকে প্রতিদিন তিনবার কাতার থেকে বিভিন্ন দেশে চিঠিপত্র পাঠানোর ব্যবস্থা করা হতো। তবে বর্তমানে এ সংখ্যা শতাধিক। প্রতিদিন কাতার থেকে পৃথিবীর নানা দেশের উদ্দেশে বিপুল পরিমাণ চিঠি ও অন্যান্য সামগ্রী পাঠানো হয়ে থাকে।

কাতারজুড়ে বর্তমানে ১৬৫টি পোস্টবক্স বিভিন্ন এলাকায় স্থাপিত রয়েছে। এগুলো প্রতিদিন চারবার খুলে চেক করা হয়ে থাকে। 

শুরুর দিকে কাতার পোস্ট অফিসে মাত্র ৯০০ পোস্টবক্স স্থাপিত ছিল গ্রাহকদের জন্য। এরপর ১৯৮৮ সালে কাতার পোস্টের প্রধান কার্যালয়ে ১২ হাজার পোস্ট বক্স স্থাপন করা হয়। পাশাপাশি বিভিন্ন শাখা পোস্ট অফিসে বসানো হয় আরও ১২ হাজার পোস্টবক্স।

করনিশের তীরে দাফনা এলাকায় অবস্থিত কাতার পোস্টের প্রধান কার্যালয়টি বাহির থেকে দেখতে আকারে ছোট মনে হলেও এটি মূলত ৩৩ হাজার ৫৪০ বর্গমিটার জায়গা জুড়ে নির্মিত। বর্তমানে এই প্রধান কার্যালয়ে রয়েছে ২৫ হাজার পোস্টবক্স। এগুলো বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কাছে ভাড়া দিয়ে থাকে কিউ পোস্ট কর্তৃপক্ষ।



শনিবার থেকে বৃহস্পতিবার কাতার পোস্টের প্রধান কার্যালয় খোলা থাকে সকাল সাতটা থেকে রাত নয়টা পর্যন্ত। আর শনিবার এটি খোলা থাকে সকাল আটটা থেকে বেলা ১১ টা এবং বিকাল পাঁচটা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত।

বিদেশ থেকে পণ্য কেনাকাটা সহজতর করতে নতুন সেবা চালু করেছে কাতার পোস্ট। এই সেবার নাম কানেক্টেড। এর মাধ্যমে খুব সাশ্রয়ী মূল্যে ইউরোপ ও আমেরিকা থেকে যে কোনো পণ্য কিনে কাতারে বসে তা সংগ্রহ করা যাবে কিউ পোস্টের মাধ্যমে।

কাতার পোস্টের একটি ওয়েবসাইট রয়েছে। এতে কিউ পোস্টের সব ধরণের সেবা ও সেবামূল্য সম্পর্কে জানা যাবে খুব সহজে। এছাড়া আছে একটি বিশেষ যোগাযোগের নম্বর: ১০৪। আছে মোবাইলে ব্যবহারের উপযোগী মোবাইল অ্যাপও।

পাশাপাশি যে কোনো পোস্ট বা পার্সেলের খোজ নেওয়া যাবে এই (http://www.qpost.com.qa/QTrack.aspx) ওয়েবসাইট থেকে। কোনো দেশে কিছু পাঠাতে হলে সেটির মূল্য হিসাব করা যাবে ওয়েবসাইটে থাকা ক্যালকুলেটরের (http://www.qpost.com.qa/LetterRates.aspx) মাধ্যমে।

সব মিলিয়ে নানাবিধ নতুন সুবিধা নিয়ে কাতার পোস্ট এখন অতীতের যে কোনো সময়ের চেয়ে বেশি গতিময়। 

আর সেজন্যই দিনভর কাতারের পথেঘাটে দেখা মেলে কাতার পোস্টের লোগো সম্বলিত গাড়ি ও মোটর সাইকেলের ব্যস্ত ছোটাছুটি।


আরও পড়ুন:

কাতারে শাসকদের ইতিহাস

কাতারে যেসব গোত্রের বসবাস

কাতার বিমানবন্দরের ইতিহাস

কাতারে চমৎকার কিছু উদ্যান

 ইতিহাস, ঐতিহ্য এবং সংস্কৃতির ধারক শেখ ফয়সাল মিউজিয়াম

সাগরের বুকে ইসলামিক স্থাপত্য জাদুঘর

যেভাবে কাতার তেলের খনি পেল

ঐতিহ্য ও আধুনিকতায় কাতারের জাতীয় মসজিদ

গালফবাংলায় প্রকাশিত যে কোনো খবর কপি করা অনৈতিক কাজ। এটি করা থেকে বিরত থাকুন। গালফবাংলার ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন।
খবর বা বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন: editorgulfbangla@gmail.com

তামীম রায়হান

সংশ্লিষ্ট খবর