শুক্রবার ১৪ই আগস্ট ২০২০ |

মধ্যপ্রাচ্যের বিস্ময় কাতারের আমির শেখ তামিম

তামীম রায়হান |  বুধবার ৩রা জুন ২০২০ সকাল ০৬:২৫:১১
মধ্যপ্রাচ্যের

কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আলথানি

বিশ্বের কোথাও কোনো আন্তর্জাতিক সম্মেলনে রাষ্ট্রপ্রধানরা যখন এক মঞ্চে সবাই একসঙ্গে দাঁড়ান, তখন যার শির সবার চেয়ে উঁচু দেখা যায়, তিনি কাতারের তরুণ আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আলথানি। আজ তাঁর জন্মদিন। এমন শুভক্ষণে কাতারের এই আমিরের জন্য প্রবাসী বাংলাদেশিদের পক্ষ থেকে জন্মদিনের অকৃত্রিম শুভেচ্ছা জানাচ্ছি আমরা।

সদাহাস্যমুখ কাতারের আমির যেমন শারীরিক উচ্চতায় অন্য বিশ্বনেতাদের চেয়ে ভিন্ন, তেমনি নেতা হিসেবে দূরদর্শিতা ও দক্ষতায় সমকালীন বিশ্বের অন্য শাসকদের তুলনায় তিনি অনন্য। এর প্রমাণ মেলে সাম্প্রতিক সময়ে বিশ্ব রাজনীতি, নিরাপত্তা ও অর্থনীতিতে কাতারের অব্যাহত সাফল্য এবং নানাবিধ অর্জনে।

শুধুমাত্র আরব উপসাগরীয় অঞ্চল অথবা মধ্যপ্রাচ্য নয়, বরং এশিয়া ও আফ্রিকাসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ ও অঞ্চলে নিজের মেধা ও যোগ্যতা এবং রাজনৈতিক দক্ষতার স্বাক্ষর রেখে চলেছেন কাতারের আমির। বিশেষ করে পৃথিবীর নানা সংঘাতপূর্ণ অঞ্চলে শান্তি, নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা ফিরিয়ে আনতে আমির শেখ তামিমের নেতৃত্বে আন্তরিক কূটনৈতিক প্রয়াস বর্তমান অস্থির রাজনীতির অশান্ত পৃথিবীতে বিরল বলা চলে।

চলতি বছর কাতারের মাধ্যমে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও আফগানিস্তানের তালেবান গোষ্ঠীর মধ্যে যে সমঝোতা ও শান্তি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়, এর নেপথ্য কারিগর হিসেবে আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আলথানির ভূমিকাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। এর ফলে গত কয়েক দশক ধরে চলমান সংঘাতে বিপর্যস্ত আফগানিস্তানে শান্তি ও নিরাপত্তা ফিরে আসার সুবাতাস বইতে শুরু করেছে।

এর আগেও বিভিন্ন সময়ে আরব ও অনারব অঞ্চলে এভাবে বিবাদমান গোষ্ঠীগুলোর মধ্যে সমঝোতা করিয়ে ষেখানে স্থিতিশীলতা ফিরিয়ে আনতে শান্তিদূতের ভূমিকা পালন করেছে কাতার। যেমন, ২০১৪ সালে সিরিয়ার জাবহাতুন নুসরা গোষ্ঠীর হাতে অপহৃত লেবাননি ১৬ সেনা ফিরিয়ে আনতে ২০১৫ সালে কাতারের মধ্যস্থতা সফল হওয়ার পেছনে কাতারের আমিরের দূরদর্শিতা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

একইসময়ে লিবিয়ায় বিবাদমান দুটি গোত্র তাবাও এবং তাওয়ারেকের মধ্যে সন্ধি স্থাপন করে দেয় কাতার। ২০১৫ সালের ২৩ নভেম্বর কাতারের রাজধানী দোহায় কয়েকদিনের সমঝোতা বৈঠক শেষে সন্ধিচুক্তিতে স্বাক্ষর করে দীর্ঘদিন ধরে হানাহানিতে ব্যস্ত দু পক্ষ।

আফ্রিকার দেশ সুদানের দারফুরে সরকার ও বিদ্রোহী গোষ্ঠীর মধ্যে আস্থা ফিরিয়ে আনতে কাতারের উদ্যোগ সফল হওয়ায় শান্তি ফিরে আসে ওই অঞ্চলে। ২০১৩ সাল থেকে বেশ কয়েকবার ফিলিস্তিনের বিরোধপূর্ণ দুটি দল হামাস ও ফাতাহ কাতারের মধ্যস্থতায় দোহায় শান্তি আলোচনায় বসে।

পাশাপাশি একই অঞ্চলের দুটি দেশ জিবুতি এবং ইরিত্রিয়ার সরকারের মধ্যে সীমান্ত সম্পর্কিত সংঘাত মিটিয়ে শান্তিচুক্তিতে স্বাক্ষর করার পেছনে কাতারের মধ্যস্থতা মূল ভূমিকা রাখে।

এভাবে পৃথিবীর দেশে দেশে শান্তি ও নিরাপত্তা এবং সুশাসন ফিরিয়ে আনতে আলাপ আলোচনা ও সমঝোতাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে শান্তিপূর্ণ উপায়ে সমাধানের এসব উদ্যোগের পেছনে কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদের ব্যক্তিগত আগ্রহ ও দূরদর্শিতা এবং দক্ষতা আজ বিশ্বজুড়ে বারবার সমাদৃত এবং প্রশংসনীয় হযেছে।

উপসাগরীয় অঞ্চলের অন্য পাঁচটি দেশের সঙ্গে কাতারের ভ্রাতৃত্ব ও বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক জোরদার করতে তাঁর আন্তরিকতা এবং উদারতা এ অঞ্চলের পারস্পরিক ঐক্য ও সহযোগিতামূলক সম্পর্ক আরও মজবুত করছে।

কিন্তু তাঁর এই সাফল্য সহ্য হয়নি উপসাগরীয় অঞ্চলে দুয়েকটি দেশের শাসকদের। প্রতিবেশী একটি দেশের নেতার প্ররোচনায় মিথ্য অপবাদ দিয়ে কাতারের বিরুদ্ধে ২০১৭ সালের ৫ জুন অন্যায়ভাবে আকস্মিক অবরোধ আরোপ করে ষৌদিআরব, আরব আমিরাত, বাহরাইন এবং মিসর।

কিন্তু এতে থমকে যায়নি কাতার। বরং আমির শেখ তামিমের দূরদর্শী সাহসিকতা ও আপোষহীন মানসিকতায় বদলে যেতে শুরু করে কাতার। আমদানি নির্ভর একটি দেশ আজ বিভিন্ন খাতে পুরোপুরি স্বনির্ভর হয়ে উঠেছে এই নেতৃত্বের বদৌলতে

ইতিহাসের বিভিন্ন সময়ে কাতারের শাসক হিসেবে এই দেশকে আধুনিকতা ও উন্নয়নের রাজপথে ক্রমান্বয়ে ধীরে ধীরে এগিয়ে নিতে যারা অবিস্মরণীয় ভূমিকা রেখেছিলেন, কাতারের ইতিহাসে তারা সবাই আজো চির স্মরণীয় ও বরণীয় হয়ে আছেন।

১৮৫০ সাল থেকে ১৮৭৮ সাল পর্যন্ত কাতার নামক এই ভূখন্ডের শাসক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন শেখ মুহাম্মদ বিন থানি। এরপর ১৮৭৮ সাল থেকে ১৯১৩ সাল পর্যন্ত এ দায়িত্ব পালন করেন শেখ জাসেম বিন মুহাম্মদ আলথানি। ১৯১৩ সালে কাতারের শাসনভার গ্রহণ করেন শেখ আব্দুল্লাহ বিন জাসেম আলথানি। তাঁর আমলেই কাতারে তেল আবিষ্কৃত হয়। ১৯৪৯ সাল পর্যন্ত তিনি কাতারের নেতৃত্ব দেন।

এরপর ১৯৪৯ সাল থেকে ১৯৬০ সাল পর্যন্ত কাতারের শাসক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন শেখ আলি বিন আব্দুল্লাহ আলথানি। ১৯৬০ সাল থেকে ১৯৭২ সাল পর্যন্ত কাতারের আমির ছিলেন শেখ আহমদ বিন আলি আলথানি।

সম্পূর্ণ স্বায়ত্ত্বশাসিত স্বাধীন কাতারের প্রথম আমির হিসেবে কাতারের শাসনকার্য পরিচালনা করেন শেখ খলিফা বিন হামাদ আলথানি। ১৯৭২ সাল থেকে ১৯৯৫ সাল পর্যন্ত তিনি কাতারের নেতৃত্বে ছিলেন।

এরপর ১৯৯৬ সালে কাতারের আমির হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন হাল আমলের নতুন কাতারের স্থপতি শেখ হামাদ বিন খলিফা আলথানি। ২০১৩ সালে তিনি ক্ষমতার ভার তুলে দেন পুত্র শেখ তামিম বিন হামাদ আলথানির কাঁধে।

২০১৩ সালের ২৫ জুন বাবা শেখ হামাদ বিন খলিফা আলথানির কাছ থেকে কাতারের আমির হিসেবে যখন শাসনভার গ্রহণ করেন শেখ তামিম বিন হামাদ আলথানি, তখন তাঁর বয়স মাত্র ৩৩ বছর। এর মধ্য দিয়ে মধ্যপ্রাচ্যের সর্বকনিষ্ঠ শাসক হিসেবে তিনি বিশ্ব রাজনীতির মঞ্চে আর্বিভূত হন। সেই থেকে আজ অবধি উন্নয়ন, শান্তি ও নিরাপত্তার অগ্রযাত্রায় মেধা ও বুদ্ধির সমন্বয়ে দক্ষ নেতৃতে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন এই তরুণ আমির।

কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আলথানি কাতারের রাজধানী দোহায় জন্মগ্রহণ করেন ১৯৮০ সালের ৩ জুন। ১৯৯৭ সালে ব্রিটেনের শেরবর্ন স্কুল থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করেন। এরপর ব্রিটেনের রয়েল মিলিটারি একাডেমি স্যান্ডহার্সট থেকে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন। ব্রিটেনে উচ্চ শিক্ষা শেষে তিনি কাতারে ফিরে আসেন এবং দেশের শাসনকাজে বাবার সঙ্গে থেকে নিজেকে প্রতিনিয়ত যোগ্য করে তোলেন।

মাতৃভাষা আরবির পাশাপাশি তিনি ইংরেজি ও ফরাসি ভাষায় পারদর্শী। আমির হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণের আগে ২০০৩ সালের ৫ আগস্ট থেকে তিনি কাতারের যুবরাজ হিসেবে বাবার সঙ্গে থেকে রাষ্ট্রীয় কার্য পরিচালনায় অভিজ্ঞতা অর্জন করেন প্রায় এক দশক ধরে। তাঁর আগে যুবরাজ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন তাঁর ভাই শেখ জাসেম বিন হামাদ আলথানি।

কাতারের অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নের পাশপাশি খেলাধুলার প্রতি কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আলথানি সবসময় বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে থাকেন। বিশেষ করে ফুটবলের উন্নয়নে তিনি সবসময় ঈর্ষণীয় ভূমিকা রাখছেন। ২০০৫ সালে তিনি ফুটবলজগতে বিনিয়োগের জন্য কাতারে একটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন। এই প্রতিষ্ঠান পরবর্তীতে ফ্রান্সের ফুটবল দল প্যারিস সেন্ট জার্মান কিনে নেয়। একইসঙ্গে বার্সালোনা ফুটবল দলেও এ প্রতিষ্ঠানটির অংশ রয়েছে।

২০০৬ সালের এশিয়ান গেমস এবং ২০১৪ সালের বিশ্ব সাঁতার চ্যাম্পিয়নশীপ আয়োজন সফল করার পেছনে কাতারের আমির শেখ তামিমের নেতৃত্ব এবং দিকনির্দেশনা মূল ভূমিকা রাখে। আগামী ২০২২ সালে অনুষ্ঠিতব্য ফুটবল বিশ্বকাপ আয়োজনেও তাঁর আগ্রহ ও সহযোগিতা এবং সর্বোপরি নেতৃত্ব কাতারকে বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গণে প্রতিনিয়ত শক্তিশালী অবস্থানে নিয়ে যাচ্ছে।

খেলাধুলার পাশাপাশি কাতারের ইতিহাস, ঐতিহ্য এবং সংস্কৃতি চর্চা ও এর বিকাশে কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদের আগ্রহ প্রশংসনীয়। তাঁর নেতৃত্ব এবং দিকনির্দেশনায় কাতারে একে একে গড়ে উঠেছে অ্যাস্পায়ার জোন, কাতারাসহ আন্তর্জাতিক মানের বিভিন্ন বিশেষ অঞ্চল ও প্রতিষ্ঠান।

কেবল রাষ্ট্র হিসেবে নয়, বরং কাতার বিশ্বজুড়ে আজ শান্তি, নিরাপত্তা, উন্নয়নের এক গৌরবময় প্রতীক। আর এর পেছনে কান্ডারির ভূমিকায় থেকে সব প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে যিনি এ দেশকে নিয়ে যাচ্ছেন উন্নতির শেখরে, তিনি আজকের বর্তমান আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আলথানি।

আমির শেখ তামিমের সফল নেতৃত্বের ফলে কাতারের নাগরিকরা যেমন অর্থনৈতিকভাবে আজ পৃথিবীর অন্যতম শীর্ষ ধনী জাতিতে পরিণত হয়েছে, তেমনিভাবে কাতারজুড়ে চলমান নির্মাণযজ্ঞের বদৌলতে লাখো বিদেশি অভিবাসীর মুখে আজ স্বস্তির হাসি ফুটছে।

নাগরিক ও বিদেশি অভিবাসীসহ ২৮ লাখ জনসংখ্যার এই দেশ কাতার এভাবেই বিশ্বময় শান্তি, সম্প্রীতি ও উন্নয়নের বার্তাবাহক কান্ডারি হয়ে থাকুক, এ প্রত্যাশা সবার।

গালফবাংলায় প্রকাশিত যে কোনো খবর কপি করা অনৈতিক কাজ। এটি করা থেকে বিরত থাকুন। গালফবাংলার ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন।
খবর বা বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন: editorgulfbangla@gmail.com

কাতার,দোহা,আমির,শেখ তামিম,আলথানি

তামীম রায়হান

কাতার প্রবাসী লেখক ও সাংবাদিক

সংশ্লিষ্ট খবর